ইফতার প্রজেক্ট – রমাদান ১৪৩৯

iftar

হাতে গোণা আর মাত্র কটা দিন বাকি! বছরের শ্রেষ্ঠ দিনগুলো আসছে। রমাদান।

প্রতি বছর এ মাসের আগে জিনিসপত্রের দাম থাকে আকাশচুম্বি।

তবে এবার রমাদান আসার আগেই গত কয়েক মাস ধরে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে।

মধ্যবিত্তরা ভুগছে, খেটে-খাওয়া মানুষরা বেঁচে আছে কোনোমতে।

একজন মানুষের দৈনিক ন্যুনতম প্রয়োজন ১২০০ ক্যালরি।

দেশের জিডিপি এবং গড় আয়ু বাড়লেও বাংলাদেশের মানুষের গড় ক্যালরি গ্রহণ কমছে। খাবারের দাম যেভাবে বাড়ছে তাতে পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার পরিমাণ কমছে। দেশের বেশিরভাগ মানুষের পুষ্টিকর খাবার কিনে খাওয়ার সামর্থ্য নেই।

তাই আমরা চেষ্টা করছি যেন সিয়াম পালন করা মানুষদের যেন ইফতারে প্রয়োজনীয় ক্যালরিযুক্ত পুষ্টিকর খাবার দেয়া যায়।

আমাদের একটি ইফতার প্যাকেজে রয়েছে –

– ১ কেজি মিসরের খেজুর (প্রতিদিন ৩ টা খেজুর ৯৫ ক্যালরি )

– আধ কেজি গুঁড়ো দুধ (প্রতিদিন ১৬.৬ গ্রাম গুড়ো দুধ ১ কাপ – ৮৫ ক্যালরি)

– ১ কেজি চিনি (প্রতিদিন ৩৩.২ গ্রাম চিনিতে থাকে তিন চামচ ১২৫ ক্যালরি)

– দেড় কেজি চিড়া (প্রতিদিন ৫০ গ্রাম চিড়ায় থাকে ১৭০ ক্যালরি)

প্রায় ৪৭৫ ক্যালরির এই ইফতার প্যাকেজের মূল্য ৬২০ টাকা।

ছবিতে একদিনের ইফতার দেখা যাচ্ছে। এ ইফতারটা আমরা নিজেরা খেয়ে দেখেছি, মোটামুটি পেট ভরে আলহামদুলিল্লাহ।

আমাদের এক মাসের ইফতার প্যাকেজে একজন মানুষের শারিরীক পুষ্টির চাহিদার কথা বিবেচনা করে ৩০ দিনের খাবার রয়েছে। অর্থাৎ একজনের ত্রিশ দিনের ন্যুনতম ক্যালরির প্রায় অর্ধেক সংস্থান করবে এমন ইফতার আমরা দেয়ার চেষ্টা করছি।

এবার আমরা মিশর থেকে আমদানী করা ‘জানাহ’ খেজুর দিচ্ছি যার এক কেজিতে প্রায় ৮৫টি খেজুর ওঠে।

অর্থাৎ প্রত্যেক সায়েম প্রতিদিন ইফতারের সময় ২-৩টি খেজুর খেতে পারবেন।

খেজুরের আছে অতি প্রয়োজনীয় মৌল ক্যালশিয়াম, ফসফরাস, আয়রন, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম এবং জিংক।

এছাড়াও এতে রয়েছে অতি প্রয়োজনীয় ভিটামিন যেমন থায়ামিন, রাইবোফ্ল্যাভিন, নিয়াসিন, ফলেট, ভিটামিন এ এবং ভিটামিন কে।

ফুলক্রীম গুঁড়োদুধে আছে প্রোটিন এবং বাটার ফ্যাট যা দেহের আমিষ এবং চর্বির চাহিদা মেটাবে।

এগুলোর প্রত্যেকটাই মানুষের দেহের জন্য প্রয়োজনীয়।

আমরা আমাদের ইফতার প্যাকেজটাকে এমনভাবে ডিজাইন করেছি যেন একজন সায়েম, অর্থাৎ রোজাদার মানুষ তার দৈনিক প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানের প্রায় সবটুকুই এখান থেকে পায়।

আমরা চাই আমাদের ক্রেতারা নিজেদের জন্য যেমন স্বাস্থ্যকর এই ইফতারের প্যাকেজ কিনবেন, ঠিক তেমনি কিনবেন প্রতিবেশি এবং আশেপাশের অসহায় দরিদ্র মানুষদের জন্য।

আপনি চাইলে নিজে কেনার পাশাপাশি আমাদের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন দুর্গম অনুন্নত এলাকাতেও পাঠাতে পারেন। আমরা আপনার পক্ষ থেকে ডেলিভারীর দায়িত্বটা হাসিমুখে পালন করবো।

আমরা চেষ্টা করব রমাদান শুরুর আগেই মানুষদের হাতে ইফতার প্যাকেজটা পৌঁছে দেওয়া যেন তারা প্রথম রোযা থেকেই আমাদের দেওয়া প্যাকেজ থেকে সারা মাস ইফতার করতে পারে।

একটা পরিবারে যদি চারজন রোযাদার এবং চারজন নামাযী মানুষ থাকে – আমরা সেই পরিবারের ৪ জনের জন্য একটি বা দুটি প্যাকেজ না – ৪ জনের জন্য ৪টি প্যাকেজই দিতে চাই।

রমাদান মাসে ক্ষুধার্ত মানুষদের খাদ্য নিরাপত্তা সীমান ভেতরে রাখার এটা একটা ছোট্ট প্রয়াস।
৬২০ টাকা দিয়ে একজনের ৩০ দিনের ইফতারের জন্য একটি প্যাকেজ কিনতে হলে যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে। মেইল করতে পারেন –shorobor.org@gmail.com, ফেসবুকে আমাদের পেইজে ইনবক্স করতে পারেন। এছাড়াও সকাল ৯-৬টার মধ্যে ফোন করতে পারেন ০১৮৬ ১০০ ৫৫৫৫ – এ নম্বরে অথবা ০১৭৫০ ১৮০০ ৪৪ বা ০১৭৫০ ১৮০০ ৫৫ – এই নম্বরগুলোতে।

Total number of views: 448

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedintumblrmailFacebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedintumblrmail

2 thoughts on “ইফতার প্রজেক্ট – রমাদান ১৪৩৯

  1. Prio Shorobor,
    I love you for the cause of Allah, most gracious and most merciful. at this moment, i m abroad. soon i will come back… and will be with you in sha allah

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *